পেঁয়াজের দাম কবে কমবে বলতে পারছেন না বাণিজ্যমন্ত্রী

4

পেঁয়াজের দাম কবে কমবে-তা সুনির্দিষ্ট করে বলতে পারছেন না বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। তবে পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, ‘সমস্যা সমাধানের একটাই পথ, দেশি উৎপাদন বাড়ানো।’

রোববার জাতীয় সংসদ ভবনের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন টিপু মুনশি।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘কবে কমবে তা পূর্বানুমান করা সম্ভব নয়। মিশর, উসবেকিস্তান থেকে পেঁয়াজ আমদানী করা হলে খরচ পড়বে ৪০–৪৫ টাকা। সে জায়গায় যেতে সময় লাগবে। কারণ নতুন বাজারে যাওয়া, আর মিশরে পেঁয়াজের দাম নগদে দিতে হয়। সমস্যা সমাধানের একটাই পথ, দেশি উৎপাদন বাড়ানো। উৎপাদন বাড়াতে হলে কৃষকেরা যাতে ন্যায্য দাম পায় তা দেখতে হবে। দেশি পেঁয়াজ ওঠলে এবং দাম পেতে শুরু করলে আমদানি কমিয়ে দেওয়া হবে। ’

তিনি বলেন, ‘ডিসেম্বরের শেষে বা মাঝামাঝি সময়ে দেশি পেঁয়াজ বাজারে আসবে। মিশর থেকেও যদি পুরোদমে চালান ঠিক থাকে এবং তাদের দাম না বাড়ে তাহলে দাম কমবে।’

এর আগে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি তোফায়েল আহমেদ পেঁয়াজের দাম বাড়ার প্রেক্ষাপট তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, ‘পৃথিবীর সব দেশেই এখন পেঁয়াজের দাম বেশি। সংসদীয় কমিটির বৈঠকে এ বিষয় আলোচনা হয়েছে। আসন্ন রমজানে যাতে বাজার স্বাভাবিক থাকে সেজন্য এক সপ্তাহের মধ্যে তারা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে সভা করবেন। তাতে বড় বড় আমদানীকারকেরা উপস্থিত থাকবেন। বার্ষিক চাহিদা কত, উৎপদন কত আর কত আমদানি করতে হবে-তা নিরূপন করা হবে।’

তিনি পেঁয়াজ ও বাজারদর নিয়ে সাংবাদিকদের সহযোগিতা কামনা করেন। তিনি আশা করেন, আগামী দুই বছরের মধ্যে বাংলাদেশ পেঁয়াজ রপ্তানি করতে পারবে।
সূত্র: দৈনিক আমাদের সময়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here